বুধবার, ০৫ মে ২০২১, ১১:০২ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সারাদেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে। বিস্তারিত জানতে কল করুন : ০১৯২৭৬১৬৪৬৩
সংবাদ শিরোনাম :
হায় ভালোবাসা এক নজরে নোয়াখালী জেলা ৩,২০০ পিস ইয়াবাসহ কক্সবাজারের ০২ জন ও ফরিদপুরের ০১ জন গ্রেফতার করে চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয়, ০২ টি মামলা দায়ের লামা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার পেলো ৩৬০ কর্মহীন পরিবার পরকীয়া সামাজিক না মানসিক রোগ? খাল দখল করে নির্মিত সাত অবৈধ দোকান ঘর উচ্ছেদ সন্দ্বীপে মরহুম আলহাজ্ব আজহার উদ্দিন মিয়ার হাতিয়াতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান হাতিয়াতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য সহায়তা বিতরণ করেন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা হাতিয়া উপজেলা তে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কুরআন শরীফ বিতরণ নোয়াখালী জেলা সদরে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতার জন্য দোয়া।
বেড়িবাঁধ নিমার্ণ না করলে বিলীন হতে পারে ভূঞাপুরের গাবসারা ইউনিয়নের অসংখ্য গ্রাম;

বেড়িবাঁধ নিমার্ণ না করলে বিলীন হতে পারে ভূঞাপুরের গাবসারা ইউনিয়নের অসংখ্য গ্রাম;

 

আতিকুর রহমান(আতিক)
টাংগাইল জেলা প্রতিনিধিঃ
নদী শাসনের জন্য বেড়িবাঁধ নির্মাণ না •করলে বিলীন হয়ে যেতে টাংগাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের অসংখ্য গ্রামসহ বাপ-দাদার হাতে গড়া বসতভিটা ও বাড়ি-ঘর। মানচিত্র থেকে মুছে যেতে পারে গাবসারা ইউনিয়নের অসংখ্য গ্রাম। অাশ্রয়হীন হয়ে পড়বে হাজার হাজার অসহায় মানুষ।

ঐতিহ্য বিজরিত গ্রাম,কুঠি বয়ড়া হতে দক্ষিণ পশ্চিম দিকে মেঘার পটল, ছোট নলছিয়া পাড়া, কালিপুর এর পূ্র্ব পাশে যে গ্রাম গুলো রয়েছে যেমন ঐতিহ্যবাহী গ্রাম,বড় জয়পুর,চণ্ডিপুর,নিকলাপাড়া, বড় নলছিয়া পাড়া, পুংলি পাড়া, আশ্রয়ণ কেন্দ্র, জুঙ্গিপুর, বিশ্বনাথ পুর, গোবিন্দপুর, রেহাই গাবসারা, রুলিপাড়া,রামপুর, সরই পাড়া, ডিগ্রির চর সহ আরো অসংখ্য গ্রাম রয়েছে। যে গ্রাম গুলো নদী ভাঙ্গন ও যমুনার বন্যা কবলিত এলাকা।

যদি এই গ্রাম গুলো ভিতরে রেখে গাইড বাঁধ দেওয়া হয় তাহলে গ্রামগুলো যেমন যমুনা নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পাবে ঠিক তেমনি রক্ষা পাবে ২০ টির মত সরকারি-বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ হাসপাতাল। যার বেশির ভাগই বিল্ডিং ও টিনসীট প্রতিষ্ঠান। যেখানে ২ কিলোমিটার পাকা রাস্তা , ৩ টি পাকা হাট বাজার, বন্যা আশ্রয়ণ কেন্দ্র, অধিকাংশ বাড়ি ঘর মেঝে পাকা। রয়েছে কয়েক শত একর ত্রি-ফসলি জমি।

চর গাবসারা দাখিল মাদ্রাসা’র অফিস সহকারী মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন,যমুনা নদীর ভাংগনের ফলে অসংখ্য মানুষ নিঃস্ব হয়েছে। চর গাবসারা দাখিল মাদ্রাসা যদি অাগের সেই বড় জয়পুর থাকতো তাহলে অামাদের এ মাদ্রাসা কয়েক তলা বিশিষ্ট বিল্ডিং থাকত। অথচ বার বার নদী ভাংগনের ফলে অাজ এ প্রতিষ্ঠানরে অাজ করুণ অবস্থা।

তিনি অারো বলেন,এখানকার ধুলো-বালিতে অমলিন মায়া মমতায় বসবাস করে অাসছে অসংখ্য পরিবার। ভূঞাপুরের মোট ভূমির ৩ ভাগই চরাঞ্চল। অার এ চরাঞ্চলে স্থায়ী বেড়িবাঁধ দিয়ে রক্ষা করার উদ্যোগ না নিলে নদী ভাংগনে বিলিন হয়ে যাবে হাজারো পরিবারের বসবাসরত গ্রাম। হুমকির মুখে পড়বে সরকারী-বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

বড় জয়পুরের শাহ অালম সরকার,শতবর্ষী নুর বকস ফকির,মেঘার পটলের শাহজাহান বি এস সি,কালিপুরের নবাসহ এলাকাবাসী বলেন,গাবসারা ইউনিয়নেন গ্রামগুলোর অস্থিত্ব রক্ষায় একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণ খুবই জরুরী ও সময়ের দাবি।

 

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2020 DainikBanglarMukh.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com