মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভারতীয় নাগরিকত্ব নিয়েই হলেন ইউপি চেয়ারম্যান, স্ত্রীও করছেন সরকারি চাকুরী উবার-পাঠাও চালকদের ধর্মঘটের ডাক খুলনায় করোনায় উপসর্গে নবনির্বাচিত ইউপি সদস্যের ইন্তেকাল ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নের যুবসমাজের আইডিয়াল – বশির আহম্মেদ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা বশির আহম্মেদ কে চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায় এলাকাবাসী। মহেশপুরে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নের, সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসার আর এক নাম  বশির আহম্মেদ। মহেশপুর সীমান্তে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করায় আটক ১১ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জনসংযোগে ব্যস্ত-৪নং স্বরূপপুর ইউনিয়নের নৌকা মনোনয়ন প্রত্যাশি বশির আহম্মেদ প্রাণহীন দেহের গুণের পঞ্চমুখ “স্মৃতিচারণ”

সুন্দরবনের পর্যটন শিল্প খুলে দেয়ার দাবীতে মানববন্ধন।

দৈনিক বাংলার মুখ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১১০ বার পড়া হয়েছে

সুন্দরবনের পর্যটন শিল্প খুলে দেয়ার দাবীতে মানববন্ধন।

দিপংকর সিকদার, বরিশাল বিভাগীয় প্রধান।

দর্শনার্থীদের আগমন ও ভ্রমণের জন্য সুন্দরবনের পর্যটন শিল্প খুলে দেয়ার দাবীতে মোংলায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে সুন্দরবন পর্যটন ব্যবসায়ী-কর্মচারীরা।

সোমবার (৩১আগষ্ট)বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পৌর শহরের মামার ঘাট সংলগ্ন মোংলা নদীর পাড়ে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে সুন্দরবনের পর্যটন শিল্পের সাথে জড়িত কয়েক’শ নৌযান মালিক ও কর্মচারীরা অংশ নেন। মানবনবন্ধনে বক্তারা করোনা বিধি নিষেধ এবং পরিবেশের সুরক্ষা নিয়মকানুন মেনেই পর্যটন ব্যবসা পরিচালনার করার প্রতিশ্রুতিও দেন।

করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে মার্চ মাস থেকে সুন্দরবনে পর্যটক ও নৌযান চলাচল বন্ধ করে দেয় বন বিভাগ। এর ফলে দীর্ঘ ৬ মাস ধরে এ পর্যটন শিল্পের সাথে জড়িত ৫০টি লঞ্চ, সাড়ে ৩শ’ জালিবোট ও দেড়’শ ট্রলারের প্রায় ৫ হাজার মালিক এবং কর্মচারীরা বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। মানববন্ধন থেকে সুন্দরবন নির্ভরশীল পর্যটন ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা দ্রুত সুন্দরবন খুলে দেয়ার জন্য বন বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ সময় তারা বলেন, দেশের বিভিন্নস্থানের পর্যটন কেন্দ্র ইতিমধ্যে খুলে দেয়া হলেও ব্যতিক্রম সুন্দরবনের ক্ষেত্রে। ব্যবসায়ী-কর্মচারীদের দাবী অচিরেই সুন্দরবন খুলে দেয়া হোক, তা না হলে আমাদের পথে বসতে হবে। পাশাপাশি আর্থিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্থ হবে বন বিভাগ।

পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. বেলায়েত হোসেন বলেন, এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্র্তৃপক্ষের কাছ থেকে এখনও পর্যন্ত কোন ধরণের নিদের্শনা আসেনি। নিদের্শনা পেলেই পর্যটকদের জন্য অবশ্যই সুন্দরবন খুলে দেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পোস্ট
© All rights reserved © 2021 dainikbanglarmukh
Theme Developed BY ThemesBazar.Com