সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা বশির আহম্মেদ কে চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায় এলাকাবাসী। মহেশপুরে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নের, সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসার আর এক নাম  বশির আহম্মেদ। মহেশপুর সীমান্তে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করায় আটক ১১ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জনসংযোগে ব্যস্ত-৪নং স্বরূপপুর ইউনিয়নের নৌকা মনোনয়ন প্রত্যাশি বশির আহম্মেদ “স্মৃতিচারণ” ২য় শ্রেণীর দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানি অভিযোগ উঠেছে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে,শিক্ষক পলাতক! মহেশপুরে ইজিবাইক চালককে পিটিয়ে হত্যা ১৪/০৯/২০২১ তারিখ রাউজানে চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয় এর অভিযানে রাউজানে একাধিক মদের মামলার আসামী ১৫ লিটার মদ সহ গ্রেফতার ০১ জন, মামলা দায়েরঃ দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার কর্মপ্রচেষ্টায় প্রাণী সুরক্ষাসেবা কার্যক্রম। জীবননগরে ওষুধের দাম বেশি নেওয়ার অভিযোগ !!!

পূর্ণিমা উপলক্ষে পার্বত্যমন্ত্রীর পক্ষে লামাবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাথোয়াইচিং মারমা

দৈনিক বাংলার মুখ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় শনিবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৯
  • ২২০ বার পড়া হয়েছে

 

প্রেস বিজ্ঞপ্তী :

বান্দরবানের লামা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের তিন তিনবার নির্বাচিত ইউ.পি চেয়ারম্যান বাথোয়াইচিং মারমা পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব বীর বাহাদুর (উশৈসিং) এমপি মহোদয়ের পক্ষ থেকে বৌদ্ধদের ২য় বৃহত্তম উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে লামা বাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

“দৈনিক বাংলার মুখ ” পত্রিকায় পাঠানো শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি বলেন, প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও আগামী ১৩ অক্টোবর ২০১৯ইং তারিখে সাড়ম্বরে পালিত হবে শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা। শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা বৌদ্ধদের একটি আনন্দময় উৎসব। ত্রৈমাসিক বর্ষাব্রত পালন শেষে প্রবারণা পূর্ণিমা আসে শরৎতের আমেজ নিয়ে । এটি সর্বজনীন উৎসব । প্রবারণার আনন্দে অবগাহন করেন সকলেই। আকাশে উড়ানো হয় নানা রকম রঙ্গিন ফানুস । নদীতে ভাসানো হয় হরেক রকমের প্যাগোডা আকৃতির জাহাজ । সবাই আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে নানা রকমের কীর্তন, গান গেয়ে আনন্দ প্রকাশ করে । আবহমান বাংলার সংস্কৃতি, কৃষ্টিকে তুলে ধরে উৎসবের মধ্যে । এ উৎসব আশ্বিনী পূর্ণিমাকে ঘিরে হয়ে থাকে ।

এ পূর্ণিমায় বৌদ্ধদের তিন মাসব্যাপী আত্মসংযম ও শীল-সমাধি প্রজ্ঞার সাধনার পরিসমাপ্তি ও পরিশুদ্ধতার অনুষ্ঠান বলে বৌদ্ধ ইতিহাসে এ পূর্ণিমার গুরুত্ব অপরিসীম । ফলে এ পূর্ণিমা বৌদ্ধদের কাছে দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎসবে রূপ পেয়েছে । প্রবারণার মাধ্যমে বুদ্ধ আমাদের মৈত্রী চিত্তে সমভাবে চলার শিক্ষা দিয়েছেন। মানুষ যেহেতু তাই আমাদের মধ্যে ভুলভ্রান্তি ঝগড়া-বিবাদ হবেই। সেগুলিকে মনের মধ্যে জমা না রেখে পরষ্পর পরষ্পরের সহিত ক্ষমা প্রার্থনা করে একত্রে সুন্দরভাবে চলার নির্দেশনা দিয়েছেন। অনেক বিহারে কিন্তু উপাসক-উপাসিকারা ও প্রবারণার দিন পরষ্পর পরষ্পরের সহিত ক্ষমা প্রার্থনা করে। প্রবারণা উৎসব বর্তমান সমাজের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ । তিনমাসব্যাপী উপোসথ পালন শেষে প্রবারণার দিন সকলে পঞ্চশীল ও অষ্টশীলে অধিষ্টিত হয়ে খুবই জাকজমকভাবে প্রবারণা উৎসব পালন করে। বিশেষ আকর্ষণ থাকে সন্ধ্যার সময় বিভিন্ন বিহারে ফানুস উড়ানো। প্রবারণার পরদিন থেকেই শুরু হয় কঠিন চীবর দানোৎসব। প্রবারণা পূর্ণিমার স্নিগ্ধ চাঁদের আলোয় পরশে দুর হয়ে যাক অন্ধকার মুছে যাক সব অপসংস্কৃতি, ফিরে আসুক সভ্যতা, শান্তি ও অনাবিল সুখ মঙ্গল প্রদীপের স্বর্ণালী আলোয় বিনাশ হোক সকল অজ্ঞতা আর পাশবিকতা, ফানুসের পূণ্যালোকে আলোকিত হোক জীবন, দূরীভূত হোক সকল অন্ধকার-ধর্মান্ধতা। “ফানুসের আলো সকলের জীবনে বয়ে আনুক অনাবিল সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি”জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক।

শুভেচ্ছান্তে
বাথোয়াইচিং মারমা

সভাপতি
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ
লামা উপজেলা শাখা

চেয়ারম্যান
১নং গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ
লামা, বান্দরবান পার্বত্য জেলা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পোস্ট
© All rights reserved © 2021 dainikbanglarmukh
Theme Developed BY ThemesBazar.Com