মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মহেশপুরে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়ন এর মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী দিপু স্বরুপপুর ইউনিয়নের গরীব-দুঃখী মানুষের আস্থার ঠিকানা বশির আহম্মেদ ভারতীয় নাগরিকত্ব নিয়েই হলেন ইউপি চেয়ারম্যান, স্ত্রীও করছেন সরকারি চাকুরী উবার-পাঠাও চালকদের ধর্মঘটের ডাক খুলনায় করোনায় উপসর্গে নবনির্বাচিত ইউপি সদস্যের ইন্তেকাল ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নের যুবসমাজের আইডিয়াল – বশির আহম্মেদ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা বশির আহম্মেদ কে চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায় এলাকাবাসী। মহেশপুরে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নের, সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসার আর এক নাম  বশির আহম্মেদ। মহেশপুর সীমান্তে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করায় আটক ১১ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জনসংযোগে ব্যস্ত-৪নং স্বরূপপুর ইউনিয়নের নৌকা মনোনয়ন প্রত্যাশি বশির আহম্মেদ

লামা উপজেলায় শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

দৈনিক বাংলার মুখ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০১৯
  • ২৫৩ বার পড়া হয়েছে

 

জাহিদ হাসান,লামা।।

আসন্ন বর্ষা মৌসুমে বান্দরবানের লামা উপজেলা শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে স্থানীয় কুটুমবাড়ী রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, বেসরকারী সংস্থা ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের রাজনৈতিক ফেলো ও উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাদ্দাম হোসেন রাকিব।এতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল, নির্বাহী অফিসার নূর-এ-জান্নাত রুমি, গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বাথোয়াইচিং মার্মা, সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোহাম্মদ রফিক, পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. সাইফুদ্দিন ও আওয়ামী লীগ নেতা অজাহা ত্রিপুরা, ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক সদরুল আমিন অতিথি ছিলেন। সম্মেলনে স্থানীয় রাজনৈতিক, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী প্রমুখ অংশ গ্রহণ করেন।সম্মলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,বান্দরবানের সবচেয়ে জনগুরুত্বপূর্ণ লামা উপজেলা শহরটি এ জনপদের গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক ও বাণিজ্য কেন্দ্র। যার উপর শহর এলাকার প্রায় ৫০ হাজার ও উপজেলার অন্য ইউনিয়নের প্রায় দেড় লক্ষ মানুষের জীবন জীবিকা নির্ভরশীল। নদীর পরিচর্যার অভাবে পানিহ উচ্চ প্রবাহ তীরে ছড়িয়ে প্রতিবছর নিম্নভুমি প্লাবিত হচ্ছে, আর তৈরি হচ্ছে আকস্মিক বন্যা।
তারা আরো বলেন, এছাড়াও শহর এলাকায় অপরিকল্পিত এবং অপর্যাপ্ত পানি নিস্কাশন ব্যবস্থার কারণে তৈরি হয় জলাবদ্ধতা। এতে সরকারী বেসরকারী সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান, আদালত, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, দোকান পাঠ, হাসপাতাল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা প্লাবিত হয়ে কোটি কোটি টাকার ক্ষতির হয়। এছাড়া প্রায় সময় পথচারী ও শিক্ষার্থীরা জলাবদ্ধতা এলাকা পারাপার হতে গিয়ে প্রায় সময় দুর্ঘটনার সম্মুখীন হন। তাই জলাবদ্ধতা সমস্যা সমাধানে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে স্থানীয়দের জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়বে।
এসময় বক্তারা, লামা শহরবাসীকে জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ থেকে মুক্ত করতে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোার্ড, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ কর্তৃপক্ষের কার্যকরী প্রদক্ষেপ দাবী করেন। পরিকল্পিত পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা, ড্রেন সংস্কার ও প্রসস্তকরণ, ঝিরি খনন, মাতামুহুরী নদী খনন ও দুপাড়ে বনায়ন সৃজন করলে নাব্যতা ফিরে জলাবদ্ধতা নিরসন হবে বলেও সম্মেলনে দাবী করা হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পোস্ট
© All rights reserved © 2021 dainikbanglarmukh
Theme Developed BY ThemesBazar.Com