রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা বশির আহম্মেদ কে চেয়ারম্যান হিসাবে দেখতে চায় এলাকাবাসী। মহেশপুরে ৪ নং স্বরুপপুর ইউনিয়নের, সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসার আর এক নাম  বশির আহম্মেদ। মহেশপুর সীমান্তে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করায় আটক ১১ আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জনসংযোগে ব্যস্ত-৪নং স্বরূপপুর ইউনিয়নের নৌকা মনোনয়ন প্রত্যাশি বশির আহম্মেদ “স্মৃতিচারণ” ২য় শ্রেণীর দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানি অভিযোগ উঠেছে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে,শিক্ষক পলাতক! মহেশপুরে ইজিবাইক চালককে পিটিয়ে হত্যা ১৪/০৯/২০২১ তারিখ রাউজানে চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয় এর অভিযানে রাউজানে একাধিক মদের মামলার আসামী ১৫ লিটার মদ সহ গ্রেফতার ০১ জন, মামলা দায়েরঃ দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার কর্মপ্রচেষ্টায় প্রাণী সুরক্ষাসেবা কার্যক্রম। জীবননগরে ওষুধের দাম বেশি নেওয়ার অভিযোগ !!!

মির্জাপুরে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে তদন্ত শুরু

দৈনিক বাংলার মুখ ডেস্ক :
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ২৮৯ বার পড়া হয়েছে

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে দুই স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে তদন্তের কাজ শুরু হয়েছে। তদন্ত কমিটি বৃহস্পতিবার এক স্কুল ছাত্রী (ভিকটিম) ও তার মা, দু’জন প্রত্যক্ষদর্শী ও অধ্যক্ষ হারুন অর রশিদের বক্তব্য গ্রহণ করেছেন বলে তদন্ত কমিটির প্রধান উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন।

এছাড়া অপর এক স্কুল ছাত্রী (ভিকটিম) ও তার মা মির্জাপুরের বাইরে থাকায় তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তাদের বক্তব্য নেয়ার জন্য পুনরায় নোটিশ করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

মির্জাপুর পৌর এলাকার বাওয়ার কুমারজানি গ্রামে অবস্থিত মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ হারুন অর রশিদ কলেজের একটি কক্ষে আটকে রেখে ওই দুই স্কুল ছাত্রীকে শ্লীলতাহানী করেছেন বলে দুই স্কুল ছাত্রীর মা মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

এদিকে ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য অধ্যক্ষ হারুন অর রশিদ মির্জাপুর পৌরসভার কাউন্সিলর শহিদুর রহমান শিপনসহ স্থানীয় লোকজন নিয়ে চাপ প্রয়োগ করে ১২ জানুয়ারি রাতে অভিযোগকারি স্কুল ছাত্রীর মা রাশেদার কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষরও নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

বিষয়টি ১৩ জানুয়ারি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মির্জাপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জকে রাশেদা বেগম লিখিতভাবে অবহিত করার পর পুলিশ ওয়ার্ড কাউন্সিলর শিপনের কাছ থেকে ওইদিন রাতেই ওই কাগজ উদ্ধার করেন।

উল্লেখ্য, গত ২০ ডিসেম্বর দুপুর ১২টার দিকে সাত আটজন শিশু-নারী মিলে কলেজ মাঠে ব্যাডমিন্টন খেলছিল। কলেজের অধ্যক্ষ মাঠে থাকা কয়েকজন মেয়ে শিশুকে কলেজ দেখানোর কথা বলে ডেকে ভবনের একটি কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে তাদের বিস্কুট খাইয়ে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির ওই দুই ছাত্রীকে একটি কক্ষে নিয়ে সবাইকে বের করে দেন। পরে দরজা আটকে রেখে ওই দুই ছাত্রীকে জড়িয়ে ধরে অধ্যক্ষ তাদের শ্লীলতাহানী করে।

এ সময় তারা চিৎকার করলে এক ছাত্রীর মা এগিয়ে গেলে অধ্যক্ষ কলেজ ভবনের গেটের তালা খুলে দেন। পরে স্থানীয় লোকজন গিয়ে দুই স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার করে। খবর পেয়ে মির্জাপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর হোসেন ও মির্জাপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোশারফ হোসেন ও উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান মুন্সি ঘটনাস্থলে গিয়ে কলেজ অধ্যক্ষ হারুন অর রশিদকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

ওই দুই ছাত্রীর বাড়ি মহিলা কলেজ সংলগ্ন বাওয়ার কুমারজানী গ্রামে। দুই স্কুল ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর ঘটনাটির সত্যতা উদঘাটনের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হারুন অর রশিদকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল মালেক।

তদন্ত কমিটি আজ বৃহস্পতিবার তদন্ত শুরু করেছে বলে কমিটির প্রধান মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন।

 

[প্রিয় পাঠক, আপনিও দৈনিক বাংলার মুখ অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। জাতীয় ,রাজনীতি,  বিনোদন ,লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- dainikbanglarmukh@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।] 

 

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পোস্ট
© All rights reserved © 2021 dainikbanglarmukh
Theme Developed BY ThemesBazar.Com